পেশাদারিত্ব: ডাক্তার বনাম সাংবাদিক

অন্যান্য অনেক পেশার চাইতে ডাক্তার এবং সাংবাদিকদের পেশাদারী আচরণ অনেক গুরুত্বপূর্ণ। ভুল চিকিৎসার ফলে যেমন একজন মানুষের মৃত্যু ঘটতে পারে তেমনি ভুল সংবাদ পরিবেশনের ফলে লেগে যেতে পারে দাঙ্গা।

professionalism

মজার ব্যাপার হলো যুদ্ধক্ষেত্রেও এই দুই পেশার মানুষ নিরপেক্ষ বলে শ্রদ্ধা পান। অার কোন পেশার মানুষ এই সম্মান টা পান বলে আমার জানা নাই।

ডাক্তারদের পেশাদারি আচরণের মানদন্ড নির্ণয় করা কঠিন বটে। খুব সহজ কথায় তারা একাধারে হবেন সৎ, চৌকস এবং মানবতার সেবায় সদা নিবেদিত। ডাক্তারদের ছুটি বলে কিছু নেই। রোগী সামনে থাকলে তাকে এগিয়ে আসতে হবে চিকিৎসার জন্য। তা সে হাসপাতালেই হোক বা হলিডে রিসোর্টেই হোক। এবং চিকিৎসা প্রদানে তিনি থাকবেন সৎ এবং মনোযোগী। কারণ তার একটু ভুলের খেসারত হতে পারে একটা জীবন।

এবার আসি সাংবাদিকদের কথায়। সাংবাদিকদের অবশ্যই বস্তুনিষ্ঠ এবং সত্য তথ্য উপস্থাপন করতে হবে। দেশের সংস্কৃতি এবং মূল্যবোধের প্রতি শ্রদ্ধা থাকতে হবে। আইনের প্রতি থাকতে হবে শ্রদ্ধা। এবং তথ্য সংগ্রহে হতে হবে চৌকস। সাংবাদিকদের সাফল্যের একটা উদাহরণ হলো ব্যাপক প্রশ্ন ফাঁসের পর আজকের অগ্রণী ব্যাংকের সিনিয়র অফিসার পদের নিয়োগ পরীক্ষা বাতিল।

সাংবাদিকরা তথ্য সংগ্রহ করবেন, সে ব্যপারে বিশেষজ্ঞ মতামত সংগ্রহ করবেন। এবং নিরপেক্ষ ও ববসবস্তুনিষ্ঠভাবে সে তথ্য পরিবেশন করবেন। কিন্তু সাংবাদিক নিজেই যদি হয় বিশেষজ্ঞ সেখানেই ঘটে বিপত্তি।

ডাক্তার বনাম সাংবাদিক এই দ্বৈরথে শুধু ডাক্তার নয়, সাংবাদিকদেরও পেশাদারিত্বের অভাব লক্ষণীয়। ডাক্তার যদি ডিউটি টাইমে ডেটিংএ যান এ বিষয়ে নিউজ করার জন্য বিশেষজ্ঞ মতামতের দরকার নাই অবশ্যই। ডাক্তার যদি অফিস টাইমে প্র্যাকটিস করেন, এ বিষয়েও বিশেষজ্ঞ মতামতের দরকার নাই। ডায়াগনস্টিক সেন্টারে ডাক্তার কত টাকা কমিশন নেন এ ব্যাপারেও নিউজ ছাপানোর জন্য বিশেষজ্ঞ মতামতই যথেষ্ট।

কিন্তু ডাক্তার ভুল চিকিৎসা দিল নাকি সঠিক চিকিৎসা দিল এই ব্যাপারটা সাংবাদিক জানবেন কি করে? অবশ্যই তাকে এ ব্যাপারে বিশেষজ্ঞ মতামত নিতে হবে। চিকিৎসা ভুল ছিল নাকি সঠিক ছিল এইটা বোঝার জন্য সাংবাদিককে চিকিৎসাবিদ্যায় পারদর্শী এই রকম কারো কাছেই মতামত নিতে হবে। রোগী মারা গেলেই চিকিৎসা ভুল ছিল, এটা আবেগ ভিন্ন কিছু নয়। ডাক্তারকে কাঠগড়ায় দাঁড় করানোর জন্য এই আবেগ যথেষ্ট নয়।

আমাদের দেশে ‘ভুল চিকিৎসায় রোগীর মৃত্যু’ টাইপের সংবাদ গুলোতে কোনটাতেই বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের কোন মতামত দেখি না। এটা পরিষ্কার ভাবে পেশাদারিত্বের লঙ্ঘন। মানুষের বিবেক ভোঁতা হলেও কারও জীবন নিয়ে ছিনিমিনি খেলতে দেখলে বা নিউজপেপারে নিউজ দেখলে মানুষ গর্জে ওঠে। এতে দাঙ্গাও বাধতে পারে। এমনকি ডাক্তারের জীবন হতে পারে বিপন্ন।

ডাক্তার, ‍সাংবাদিক সহ সকল পেশাজীবীর পেশাদারিত্বের মানদন্ড নির্ণয় করা হোক। সকলের জবাবদিহিতা নিশ্চিত করা হোক। ব্যক্তিগত/পেশাগত দ্বন্দ্বের কুৎসিৎ বিস্ফোরণে কারও জীবন যাতে হুমকির মুখে না পড়ে সে ব্যবস্থা নিশ্চিত করা হোক।

 

বিঃদ্রঃ মেডিকেল কলেজের ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁস হবে আর  সেই কলেজ থেকে পাশ করা ডাক্তাররা হবেন ফেরেশতার মত এটা আশা করা বাতুলতা মাত্র।

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s